১৫টি আধুনিক কৃষি প্রযুক্তির নাম

রেটিং দিন

বাংলাদেশ কৃষি নির্ভরশীল দেশ। এদেশের প্রায় ৬০% আয় কৃষি ক্ষেত্র থেকে আসে। একটা সময় কৃষকরা সনাতন পদ্ধতিতে চাষাবাদ করতো। কিন্তু এখন প্রযুক্তির উন্নতির ফলে কৃষকরা চাষাবাদে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করছে। 

কৃষি কাজে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে কৃষকের কাজ সহজ হয়ে যাচ্ছে। তাই আজ আপনাদের সাথে ১৫টি আধুনিক কৃষি প্রযুক্তির নাম শেয়ার করবো। চলুন শুরু করা যাক। 

আধুনিক কৃষি প্রযুক্তির নাম

আধুনিক কৃষি প্রযুক্তির নাম

আপনি হয়তো দুই-একটা কৃষি প্রযুক্তির নাম জেনে থাকবেন। কিন্তু আজ আপনাদের সাথে আমরা ১৫টি আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি সম্পর্কে আলোচনা করব। নিম্নে ১৫টি আধুনিক কৃষি প্রযুক্তির নাম দেওয়া হলো:

  1. কম্বাইন্ড হারভেস্টর
  2. রাইস ট্রেসার মেশিন
  3. সোনালীকা ট্রাক্টর
  4. ট্রলি
  5. সিডার
  6. রাইস ট্রান্সপ্ল্যান্টার
  7. ওয়াটার পাম্প
  8. রোটারি টিলার
  9. সার প্রয়োগের মেশিন
  10. স্প্রে মেশিন 
  11. ফসল শুকানোর মেশিন
  12. ঘাস কাটা মেশিন
  13. গার্ডেন টেলার
  14. মালচিং মেশিন
  15. রোবোটিক মিল্কিং সিস্টেম

এসকল মেশিন ব্যবহারের ফলে কৃষকের কাজ অনেক সহজে হয়ে যাচ্ছে। যেকাজ করতে অনেক সময় লাগত এবং অনেক লোক লাগত, সেই কাজ অল্প সময় এবং কম লোকেই করতে পারছে। এতে কৃষকরা লাভবান হচ্ছে।

এবার চলুন এসকল প্রযুক্তি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।

কম্বাইন্ড হারভেস্টর

আধুনিক কৃষি প্রযুক্তির মধ্যে অন্যতম হলো কম্বাইন্ড হারভেস্টর। এই মেশিন দিয়ে অনেকগুলো কাজ করা যায়। যথা: ফসল কাটা, মাড়াই করা, ঝাড়া এবং পরিষ্কার করার কাজ করা হয়। এই একটি মেশিন দিয়ে ধান, গম, শস্য ইত্যাদি ফসলের কাজ করা যায়।

📌 আরো পড়ুন 👇

এই মেশিন ছাড়া কাজ করতে কৃষকদের অনেক সময় ব্যয় হতো। কিন্তু কম্বাইন্ড হারভেস্টর মেশিনটি ব্যবহার করে মাত্র কয়েক ঘন্টায় মধ্যে ফসল কাটা থেকে শুরু তা বস্তায় ভরা পর্যন্ত সকল কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব।

এই মেশিনটি ঘন্টায় প্রায় ১-১.৫ একর জমির ধান কাটতে এবং মাড়াই করতে পারে।

রাইস ট্রেসার মেশিন

ধান মাড়াই করা মেশিনকে রাইস ট্রেসার মেশিন বলা হয়। এই আধুনিক মেশিনটি ব্যবহার করে অল্প সময়ে অনেক কাজ করা যায়। আগে ধান মাড়াই করতে অন্য একটি মেশিন ব্যবহার করা হতো। কিন্তু সেই মেশিন দিয়ে ধান মাড়াই এবং তা গোছাতে অনেক সময় লাগত। এজন্য বর্তমানে রাইস ট্রেসার মেশিনটি ব্যবহার করা হয়।

ধান কাটার পর তা ছোট ছোট আটি বেঁধে রাখা হয়। তারপর এই আটি গুলো এই মেশিনের মধ্যে দেওয়া হয়। মেশিনটি আটি থেকে ধান আলাদা করে দেয়। ধান মাড়াই এর সাথে সাথে তা বস্তায় ভরতে সাহায্য করে। 

এই একটি মেশিন দিয়ে ধান মাড়াই করা এবং বস্তা বন্দি করা সম্ভব। এছাড়াও এই মেশিনটি যে শুধুমাত্র ধানের কাজে ব্যবহার করা হয় তা নয়। এই মেশিন দিয়ে ধানের পাশাপাশি সরিষা, তিল, গম, ধনিয়া, মাসকলাই ইত্যাদি ফসলের কাজে ব্যবহার করা যায়।

সোনালীকা ট্রাক্টর

একটা সময় কৃষকরা লাঙ্গল দিয়ে জমি চাষ করত। তারপর থেকে প্রযুক্তির ব্যবহার শুরু করল। তখন তারা পাওয়ার টিলার দিয়ে জমি চাষ এবং জমি সমতল করা শুরু করল। 

কিন্তু বর্তমানে প্রযুক্তি আরও উন্নত হয়েছে। কৃষকরা এখন জমি চাষে অনেক আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে। তার মধ্যে আরেকটি প্রযুক্তির নাম সোনালিকা ট্রাক্টর। এটি ACI কম্পানির একটি অত্যাধুনিক মেশিন। 

এটি জমি চাষ এবং সমতলের কাজে ব্যবহার করা হয়। এই ট্রাক্টর কি চালানো খুবই সহজ। এই ট্রাক্টরটি ব্যবহার করে খুব অল্প সময়ে অনেক জমি চাষ করা যায়। এটি ডিজেল চালিত মেশিন। এই মেশিনের মূল্য ১৪ লাখ টাকা থেকে শুরু করে ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।

ট্রলি

এই এই মেশিনটি মালবাহী মেশিন নামে পরিচিত। বিভিন্ন ধরনের কৃষি যন্ত্রপাতি, সার, বীজ, ফসল ইত্যাদি পরিবহনের কাজে ব্যবহার করা হয়। এই মেশিনটির ব্যবহার খুব কম। কেননা এই মেশিনটি বড় বড় খামারের ব্যবহার করা হয়।

এই মেশিনটি মবিল এবং অকটেন ধারা চালিত হয়। এই মেশিনটি ২০০ কেজি পর্যন্ত টানতে সক্ষম। বাজারে এই মেশিনটি ৪০ – ৫০ হাজার টাকার মধ্যে পেয়ে যাবেন।

সিডার

সিডার একটি বীজ বপনকারী মেশিন। এই মেশিনটি বীজ বপনের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। একটি নির্দিষ্ট দূরত্বে এবং নির্দিষ্ট গভীরতায় বীজ বপনের ক্ষেত্রে এই মেশিনটি ব্যবহার করা হয়। এই মেশিন দিয়ে ভুট্টা, মটরশুটি, চীনাবাদাম ইত্যাদি বীজ বপন করা যায়।

এই মেশিন কি ১৭ থেকে ২০ সেন্টিমিটার দূরত্বে বীজ বপন করতে সক্ষম। এবং ৪০ থেকে ৫০ সেন্টিমিটার গভীরতায় বীজ বপন করতে পারে। এবং প্রতিটি বীজ নির্দিষ্ট পরিমাপে বপন করতে সক্ষম।

রাইস ট্রান্সপ্ল্যান্টার

রাইস ট্রান্সপ্ল্যান্টার হলো এক অত্যাধুনিক কৃষি প্রযুক্তি।  এই মেশিনটি ধানের চারা রোপণের কাজে ব্যবহার করা হয়। এটি একটি ট্রাক্টরের সাথে যুক্ত থাকে। এবং একজন চালক মেশিনটি নিয়ন্ত্রণ করে। 

মেশিনের সামনের দিকে একটি চারা ধারক থাকে। এই চারা ধারকে ধানের চারা রাখা হয়। মেশিনের পিছনের দিকে একটি রোপণ যন্ত্র থাকে। এই রোপণ যন্ত্রটি মাটিতে ছিদ্র করে এবং সেই ছিদ্রে চারা রোপণ করে। 

এই মেশিন দুই ভাবে চালানো যায়, একটি হাতে, অন্যটি ট্রাক্টরের সাথে যুক্ত করে চালানো যায়। রাইস ট্রান্সপ্ল্যান্টার ধান চাষের জন্য একটি অত্যন্ত কার্যকর মেশিন।

ওয়াটার পাম্প

পানি ছাড়া কোনো ফসল উৎপাদন করা সম্ভব নয়। আগে কৃষকরা কৃষি কাজে বৃষ্টির পানি ব্যবহার করতো। এজন্য তাদেরকে অপেক্ষা করতে হতো যে কখন বৃষ্টি নামবে। এছাড়াও সঠিক সময়ে বৃষ্টি না হওয়ায় ফসল নষ্ট হয়। 

কিন্তু বর্তমানে কৃষকরা আল বৃষ্টির জন্য অপেক্ষা করে না। কেননা বাজারে বিভিন্ন ধরনের ওয়াটার পাম্প মেশিন পাওয়া যায়। এটি একটি ডিজেল চালিত মেশিন। এই মেশিন দিয়ে যেকোনো সময় মাটির গভীর থেকে পানি উত্তোলন করা সম্ভব। 

এজন্য কৃষকরা জমিতে সেচ দেওয়ার জন্য এই মেশিন ব্যবহার করে। 

রোটারি টিলার

রোটারি টিলার অনেকের কাছে পাওয়া টিলার নামে পরিচিত। এটি জমি চাষের জন্য ব্যবহার করা হয়। এটি একটি ডিজেল চালিত গাড়ি। এই গাড়ির সামনে দুটি বড় চাকা থাকে এবং পেছনে একটি ছোট চাকা থাকে। এবং মাঝখানে নিচে কিছু ফাল বা কাটা থাকে। যা দিয়ে জমি চাষ করা হয়। 

আগে কৃষকরা লাঙ্গল দিয়ে জমি চাষ করতো। এতে অনেক কষ্ট হতো এবং অনেক সময় লাগত। কিন্তু এখন টিলার বা ট্রাক্টর দিয়ে চাষ করা হয়। ফলে কম সময়ে অধিক জমি চাষ করা যায়।

সার প্রয়োগের মেশিন

ভালো ফসল ফলাতে বা মাটির মান ভালো করতে জমিতে বিভিন্ন ধরনের সার প্রয়োগ করা হয়। আগে কৃষকরা হাতে করে জমিতে সার ছিটিয়ে দিত। 

কিন্তু প্রযুক্তির উন্নয়নের ফলে এখন মেশিন দ্বারা সার প্রয়োগ করা হয়। মেশিনটির নাম ব্যাকসেভার এই মেশিনটি ঠেলাগাড়ির মতো ব্যবহার করতে হয়। বাংলাদেশে এই মেশিনের দাম ৪-৫ হাজার টাকা।

স্প্রে মেশিন

প্রায় সব ধরনের ফসলে কীটনাশক প্রয়োগ করতে হয়। আর কীটনাশক প্রয়োগ করার জন্য স্প্রে মেশিনের প্রয়োজন। যার বাজার মূল্য ২ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ৩২ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। এই মেশিন একটি ড্রামের মতো।

এটি ব্যবহার করতে হলে প্রথমে কীটনাশকটি পানিতে গুলিয়ে ড্রামে ভোরতে হয়। তারপর ড্রামটি পিঠে ঝুলিয়ে রাখতে হয়। সাথে একটি পাইপ এবং একটি হেন্ডেল থাকে‌। বাম হাত দিয়ে হেন্ডেলটি পাম্প করতে হয়, এবং ডান হাতে থাকা পাইপ দিয়ে কীটনাশকের পানি বের হয়। আর এভাবেই জমিতে কীটনাশক ব্যবহার করতে হয়। 

ফসল শুকানোর মেশিন 

বর্ষায় দ্রুত ফসল শুকাতে আর ঝামেলা পোহাতে হবে না কৃষকদের। কেননা এখন বাজারে ফসল শুকানোর মেশিন পাওয়া যায়। যার নাম বিএইউ-এসটিআর ড্রায়ার। এই মেশিনটির মাধ্যমে ধান, গম, শস্য, ভুট্টা ইত্যাদি শুকানো যায়। বর্তমানে এই মেশিনটির ব্যবহার বৃদ্ধি পাচ্ছে।

ঘাস কাটা মেশিন

বর্তমানে কৃষকরা জমিতে ঘাস উৎপাদন করছে। এই ঘাস অনেক বড় এবং শক্ত হয়। তবে এই আধুনিক যুগে বিজ্ঞানীরা ঘাস কাটার যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন। এই মেশিন দিয়ে ঘাস কাটার পাশাপাশি খর কাটা যায়। বাজারে এই মেশিনের দাম ১০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ৩০ হাজার টাকার মধ্যে পেয়ে যাবেন। 

গার্ডেন টেলার

গার্ডেন টেলার মেশিনটি একটি অত্যাধুনিক কৃষি প্রযুক্তি। সাধারণত এই মেশিনটি বাগানের কাজে ব্যবহার করা হয়। এটি হাতে চালিত মেশিন। বাগানের মাটিতে চাপ দিয়ে ভেঙ্গে ঝুরঝুরে করতে সাহায্য করে।

গার্ডেন টেলার বাগান পরিচর্যার একটি গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্র। এই যন্ত্রটি ব্যবহার করে বাগানের মাটি তৈরি করা সহজ হয়।

মালচিং মেশিন

মালচ হল জৈব পদার্থ যা ফসলের ক্ষেত বা বাগানে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। মালচের মধ্যে রয়েছে খড়, কম্পোস্ট, গাছের পাতা, কাঠের গুঁড়া ইত্যাদি। এটি এক ধরনের জৈব সার। যা চাষের মাটিকে উর্বর করে তোলে। এই সার ফসল লাগানোর আগে এবং ফসল হ‌ওয়ার পরে ব্যবহার করা যায়। 

মালচিং মেশিন হল একটি কৃষি মেশিন যা মালচ ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য ব্যবহৃত হয়। এই মেশিন হাতে এবং ট্রাক্টরের সাথে যুক্ত করে চালানো যায়। এই মেশিনের ব্যবহার ফসলের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

রোবোটিক মিল্কিং সিস্টেম

রোবোটিক মিল্কিং সিস্টেম হলো একটি অন্যতম আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি। এটি এমন একটি মেশিন যা গরুর থেকে দুধ সংগ্রহ করে। এই সিস্টেমটি কৃষকদের শ্রম ও সময় সাশ্রয় করতে সাহায্য করে এবং দুগ্ধ উৎপাদনশীলতা উন্নত করে।

📌 আরো পড়ুন 👇

এটি মূলত বড় বড় খামারে‌ ব্যবহার করতে দেখা যায়। আর যাদের অল্প সংখ্যক গরু আছে, তারা নিজেরাই দুধ সংগ্রহ করে। 

আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি সম্পর্কে আমাদের মতামত

আজকের আর্টিকেলটি পড়লে আপনি বুঝতে পারবেন প্রযুক্তি কতটা উন্নতি করছে। গ্রামে-গঞ্জে, মাঠে-ঘাটে সব জায়গাতেই প্রযুক্তির স্পর্শ রয়েছে। 

আজকের আর্টিকেলে ১৫টি আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আশা করছি আপনি উপকৃত হবেন। তবে আপনি যদি উপরে আলোচিত কোনো মেশিন কিনতে চান, তাহলে সেই মেশিন সম্পর্কে গুগলে বা ইউটিউবে দেখে নিবেন।