জেনে নিন বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি

5/5 - (1 vote)

বাংলাদেশে বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি এই বিষয়টি নিয়ে আজকের এই পোস্টে আপনাদের সাথে বিস্তারিত আলোচনা করবো। বাংলাদেশে অবস্থিত বেসরকারি মালিকানাধীন ব্যাংক কয়টি এবং এগুলোর নাম কি কি তা জানতে ইচ্ছুক হলে পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন।

কারণ, বাংলাদেশে অবস্থিত ও পরিচালিত বেসরকারি সকল ব্যাংকের তালিকা এবং এসব ব্যাংক সম্পর্কে কিছু তথ্য শেয়ার করবো আপনাদের সাথে। তো চলুন, পোস্টের মূল বিষয়ে ফিরে আসা যাক।

বেসরকারি ব্যাংক কাকে বলে?

যেসব ব্যাংক কোনো ব্যক্তি বা একাধিক ব্যাক্তির মালিকানায় গঠিত এবং পরিচালিত হয়ে থাকে, সেসব ব্যাংককে বেসরকারি ব্যাংক বলা হয়। বেসরকারি ব্যাংক দুই ধরণের হয়ে থাকে। এগুলো হচ্ছে – প্রথাগত বা সাধারণ ব্যাংক এবং ইসলামি শরিয়াহ ভিত্তিক ব্যাংক।

বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি

বাংলাদেশে বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি তা অনেকেই জানেন না। আমাদের দেশে সরকারি ব্যাংক রয়েছে ৬টি তা তো অনেকেই জানি। কিন্তু, বেসরকারি ব্যাংকের তালিকা সম্পর্কে অনেক কম মানুষই অবগত আছেন। ব্যাংকিং সেক্টরের সাথে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত আছেন এমন মানুষের জন্য বাংলাদেশে বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি জেনে রাখা জরুরী।

📌 আরো পড়ুন 👇

তো চলুন, বেসরকারি ব্যাংকের তালিকা সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক।

বাংলাদেশে বেসরকারি ব্যাংক কয়টি?

বাংলাদেশে মোট ৪৩ টি বেসরকারি ব্যাংক রয়েছে। বেসরকারি মালিকানাধীন বা কোনো ব্যক্তি অথবা অধিক ব্যক্তির অধীনে যেসব ব্যাংক পরিচালিত হয়ে আসছে এমন ব্যাংকের সংখ্যা বাংলাদেশে মোট ৪৩ টি। উক্ত ৪৩ টি ব্যাংকের মাঝে ৩৩টি বেসরকারি ব্যাংক প্রথাগত ব্যাংকিং ব্যবস্থার অধীনে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে।

এছাড়া বাকী ১০টি ব্যাংক ইসলামি শরিয়া অনুযায়ী তাদের ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। তবে, বেসরকারি প্রতিটি ব্যাংকের ইসলামি শরিয়া অনুযায়ী ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করার আলাদা নিয়ম রয়েছে। নিচের তালিকা থেকে বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি জানতে পারবেন।

বাংলাদেশের প্রথাগত বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি তালিকা – 

  • সিটি ব্যাংক লিমিটেড
  • প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড
  • ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড
  • পূবালী ব্যাংক লিমিটেড
  • উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড
  • ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড
  • মেঘনা ব্যাংক লিমিটেড
  • কমিউনিটি ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড
  • এবি ব্যাংক লিমিটেড
  • ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড
  • আইএফআইসি ব্যাংক লিমিটেড
  • এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড
  • যমুনা ব্যাংক লিমিটেড
  • ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড
  • সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার এন্ড কমার্স ব্যাংক লিমিটেড
  • পদ্মা ব্যাংক লিমিটেড
  • এনসিসি ব্যাংক লিমিটেড
  • বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেড
  • সীমান্ত ব্যাংক লিমিটেড
  • ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড
  • মিডল্যান্ড ব্যাংক লিমিটেড
  • ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড
  • বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড
  • ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড
  • মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড
  • সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড
  • ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড
  • ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড
  • মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড
  • এনআরবি ব্যাংক লিমিটেড
  • মধুমতি ব্যাংক লিমিটেড
  • সিটিজেনস ব্যাংক পিএলসি
  • প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড

উপরোক্ত এই ব্যাংকগুলো বাংলাদেশে গঠিত এবং পরিচালিত বেসরকারি মালিকানাধীন ব্যাংক। এসব ব্যাংক তাদের ব্যাংকিং কার্যক্রম প্রথাগত ব্যাংকিং কার্যক্রম অনুযায়ী পরিচালনা করে থাকে। নিম্নে ইসলামি শরিয়া অনুযায়ী পরিচালিত বেসরকারি ব্যাংকসমুহের তালিকা উল্লেখ করে দিয়েছি।

বাংলাদেশে ইসলামি বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি তালিকা – 

  • ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড
  • সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডে
  • শাহ্‌জালাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড
  • স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড
  • গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড
  • ইউনিয়ন ব্যাংক লিমিটেড
  • আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড
  • ফার্স্ট সিকিউরিটিজ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড
  • এক্সিম ব্যাংক (বাংলাদেশ)
  • আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক লিমিটেড

উপরের তালিকায় উল্লিখিত ব্যাংকসমূহ ইসলামি শরিয়া অনুযায়ী তাদের ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। আপনি যদি কোনো ইসলামি ব্যাংকে হিসাব খুলতে চান এবং ইসলামি ব্যাংকে লেনদেন সহ সঞ্চয় জমা করতে চান, তবে এই তালিকায় উল্লিখিত ব্যাংকগুলো আপনার জন্যই। এসব ব্যাংক থেকে সহজেই ইসলামি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারবেন।

বাংলাদেশের প্রথম বেসরকারি ব্যাংক

 

বাংলাদেশের প্রথম বেসরকারি ব্যাংক হল আরব বাংলাদেশ ব্যাংক লিমিটেড (এবিবিএল)। ১৯৮১ সালের ৩১ ডিসেম্বর ইনকর্পোরেটেড হয়ে ১৯৮২ সালের ১২ এপ্রিল ২০০ মিলিয়ন টাকার অনুমোদিত মূলধন এবং ৮৫ মিলিয়ন টাকার পরিশোধিত মূলধন নিয়ে ব্যাংকটি কার্যক্রম শুরু করে। প্রতিষ্ঠার ২৫ বছর পর ব্যাংকটির পুনরায় নামকরণ হয় এবি ব্যাংক লিমিটেড(AB Bank Limited)। বাংলাদেশ ব্যাংক ১৪ নভেম্বর ২০০৭ তারিখে ব্যাংকটি নতুন নামকরণ অনুমোদন করে।

📌 আরো পড়ুন 👇

ব্যাংকটি ১৯৮২ সালের ১২ এপ্রিল রাজধানীর কারওয়ান বাজারে শাখা উদ্বোধনের মাধ্যমে বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করে। দেশের ব্যাংকিং খাতে আধুনিক সেবার অনেক ধারণা এবি ব্যাংকের হাত ধরে এসেছে। দক্ষ ব্যাংকার তৈরিতেও ব্যাংকটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে।

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বেসরকারি ব্যাংক

বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি , বাংলাদেশের প্রথম বেসরকারি ব্যাংক

২০২৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বেসরকারি ব্যাংক হল ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড। ব্যাংকটির পরিশোধিত মূলধন ১২ হাজার কোটি টাকা। ব্যাংকটির মোট সম্পদ ১ লাখ ৮০ হাজার কোটি টাকা এবং মোট আয় ১১ হাজার কোটি টাকা।

ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড ১৯৮৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। ব্যাংকটির প্রধান কার্যালয় ঢাকায় অবস্থিত। ব্যাংকটি বর্তমানে সারা দেশে ৬১২টি শাখা এবং ৪০টি উপ-শাখার মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে।

ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড তার গ্রাহকদের জন্য বিভিন্ন ধরনের ব্যাংকিং সেবা প্রদান করে থাকে। এর মধ্যে রয়েছে আমানত, ঋণ, বিনিয়োগ, বীমা, শেয়ার ব্রোকারেজ, এবং অন্যান্য আর্থিক সেবা। ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড বাংলাদেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। ব্যাংকটি দেশের উন্নয়নে বিনিয়োগে সহায়তা করছে এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টি করছে।

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড (IBBL) বাংলাদেশের একটি বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক। এটি ইসলামী শরিয়াহ মোতাবেক পরিচালিত দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম ইসলামি ব্যাংক। ব্যাংকটি ১৯৮৩ সালের ১৩ই মার্চ কোম্পানি আইন, ১৯১৩-এর অধীনে একটি পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়।

আইবিবিএল-এর প্রধান কার্যালয় ঢাকায় অবস্থিত। ব্যাংকটি বর্তমানে সারা দেশে ১০৭১ টি শাখা এবং ৬২ টি উপ-শাখার মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে। বাংলাদেশের বাইরে বেশ কয়েকটি দেশেও ব্যাংকটির শাখা রয়েছে।

আইবিবিএল-এর মূল কার্যক্রম হচ্ছে ইসলামী শরিয়াহ অনুযায়ী ব্যাংকিং সেবা প্রদান। ব্যাংকটি মুদারাবা, মুশারাকা, ইজারা, এবং সালামের ভিত্তিতে লেনদেন সম্পাদন করে থাকে। ব্যাংকটি তার গ্রাহকদের জন্য বিভিন্ন ধরনের আমানত, ঋণ, এবং অন্যান্য ব্যাংকিং সেবা প্রদান করে আসছে।

আইবিবিএল-এর সাফল্যের পেছনে বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে। প্রথমত, ব্যাংকটি ইসলামী শরিয়াহ অনুযায়ী পরিচালিত হয়, যা এর গ্রাহকদের মধ্যে আস্থা ও বিশ্বাস তৈরি করেছে। দ্বিতীয়ত, ব্যাংকটি তার গ্রাহকদের জন্য বিভিন্ন ধরনের সুবিধা প্রদান করে, যা তাদের সন্তুষ্টি অর্জনে সহায়তা করেছে। তৃতীয়ত, ব্যাংকটি তার কর্মীদের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার মাধ্যমে প্রতিযোগিতামূলক অবস্থান তৈরি করেছে।

📌 আরো পড়ুন 👇

আইবিবিএল বাংলাদেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। ব্যাংকটি দেশের উন্নয়নে বিনিয়োগে সহায়তা করছে এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টি করছে। ব্যাংকটি দেশের অর্থনীতিতে ইসলামী ব্যাংকিং ব্যবস্থার প্রসারেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি – প্রশ্ন‌উত্তর

বাংলাদেশে বেসরকারি ব্যাংক কয়টি?

বাংলাদেশে মোট ৪৩টি বেসরকারি ব্যাংক রয়েছে। এর মাঝে ৩৩ টি ব্যাংক প্রথাগত ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে এবং বাকী ১০টি ব্যাংক ইসলামি শরিয়া অনুযায়ী তাদের ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে।

আরব বাংলাদেশ ব্যাংক লিমিটেড এর বর্তমান নাম কী?

আরব বাংলাদেশ ব্যাংক লিমিটেড এর বর্তমান নাম হচ্ছে AB ব্যাংক।

বাংলাদেশের বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি?

বাংলাদেশের বেসরকারি ব্যাংক মোট ৪৩টি। এগুলো হচ্ছে ৩৩টি প্রথাগত বেসরকারি ব্যাংক এবং ১০ টি ইসলামি ব্যাংক।

বেসরকারি ব্যাংক সম্পর্কে আমাদের মতামত 

আজকের এই পোস্টে আপনাদের সাথে বাংলাদেশে বেসরকারি ব্যাংক কয়টি ও কি কি তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ে থাকলে বাংলাদেশে অবস্থিত বেসরকারি ব্যাংকগুলোর তালিকা সম্পর্কে জানতে পেরেছেন বলে আশা করছি।

এছাড়াও, আরও কোন প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই মন্তব্য করবেন। আমরা আপনার প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করবো। এতক্ষন প্রযুক্তির বাংলা ব্লগের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।